By | May 23, 2021

বাংলাদেশের দেওয়া ২৫৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি শ্রীলঙ্কার। ২১ রান করে মেহেদী হাসান মিরাজের বলে তাকে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন দানুশকা গুনাথিলাকা।

এরপর বল করতে এসেই উইকেটের দেখা পান মুস্তাফিজুর রহমান। মুস্তাফিজের বলে আফিফের হাতে ক্যাচ দিয়ে ৮ রান করে ফিরেন পাথুম নিশানকা। দ্রুত ২ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে লঙ্কানরা।

কিন্তু কুশল পেরেরা-কুশল মেন্ডিসের ব্যাটে এগিয়ে যেতে থাকে তারা। তবে সেই জুটি বড় হতে দেননি সাকিব আল হাসান। সাকিবের বলে মিরাজের হাতে ধরা পড়ে ২৪ রান করে ফিরেন কুশল মেন্ডিস, এতে তাদের ৪১ রানের জুটি ভাঙে।

এরপর লঙ্কান শিবিরে একের পর এক আঘাত হানেন মিরাজ। মিরাজের বলে বোল্ড হয়ে ফিরেন কুশল পেরেরা। ৩০ রান করে সাঝঘরে ফিরেন তিনি। ৯ রান করে মিরাজের বলে বোল্ড হয়ে ফিরেন ধনাঞ্জয়া। ৩ রান করে মিরাজের বলে বোল্ড হয়ে ফিরেন বান্দারা।

মিরাজের ঘূর্ণির পর লঙ্কান শিবিরে আঘাত হানেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। ১৪ রান করে সাইফউদ্দিনের বলে বোল্ড হয়ে ফিরেন শানাকা। এরপর ব্যাট হাতে দলকে জয়ের দিকে এগিয়ে নিতে থাকেন হাসারাঙ্গা।

৬৩ রানে জীবন পেয়েছিলেন হাসারাঙ্গা। সাকিবের বলে লং অনে ক্যাচ তুলেছিলেন তিনি। তবে ক্যাচ ধরতে ব্যর্থ হন লিটন। শেষ পর্যন্ত ৭৪ রান করে সাইফউদ্দিনের বলে আফিফের হাতে ধরা পড়ে ফিরেন তিনি।

এরপর লঙ্কান শিবিরে জোড়া আঘাত হানেন মুস্তাফিজ। মুস্তাফিজের বলে মিরাজকে ক্যাচ দিয়ে ২১ রান করে ফিরেন উদানা। সাইফউদ্দিনকে ক্যাচ দিয়ে ৫ রান করে ফিরেন চামিরা। এতে ২২৪ রানে অলআউট হয়ে যায় শ্রীলঙ্কা। ৩৩ রানে জয় পেয়ে সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.